ভোলার দৌলতখান উপজেলায় চৈতি ট্রাভেলস নামে একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মাহিন্দ্রকে ধাক্কা দিলে মাহিন্দ্রটি পথচারী তানজিদ (১৫)কে সহ রাস্তার পাশের ডোবায় পরে যায়। এতে পথচারী তানজিদ ঘটনাস্থলেই মারা যায়। জানা যায় নিহত তানজিদ চরখলিফা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের আব্দুল খালেকের ছেলে। এঘটনার পর থেকে বাস চালক পলাতক রয়েছে। এসময় বাস ও মাহিন্দ্রে থাকা অন্তত আরো ২০ জন যাত্রী আহত হয়। এদের মধ্যে গুরুতর ২ জনকে বরিশালে প্রেরণ করা হয়েছে। যাত্রীবাহি বাসটিও গাছের সাথে ধাাক্কা খেয়ে দুমরে মুচরে যায়। প্রথমে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

খবর পেয়ে দৌলতখান ফায়ারসার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধার কাজ পরিচালনা করে। বুধবার দুপুর ৩টায় দৌলতখান উপজেলার পৌরসভা ৩ নম্বর ওয়ার্ডের (চরখলিফা মাদ্রাসার) মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে দৌলতখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলার রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। প্রত্যক্ষ্যদর্শী মোঃ আমজাদ আবির জানান, দৌলতখান বাসস্ট্যান্ড থেকে একটি যাত্রীবাহি বাস দুপুর ৩টায় ভোলার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

বাসটি দৌলতখান চরখলিফা মাদ্রাসার মোড় সাত্তার মিয়ার সমিলের সামনে পৌঁছলে বাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে যাত্রীবাহি একটি মাহিন্দ্রকে ধাক্কা দিলে মাহিন্দ্রটি পথচারী তানজিদকে নিয়ে রাস্তার পাশের ডোবায় পরে যায়। এসময় ওই পথচারী ঘটনাস্থলেই মারা যায়। দৌলতখান ফায়ারসার্ভিসের স্টেশন অফিাসর মোঃ মুস্তফা কামাল জানান, খবর পেয়ে আামাদের ফায়ারসার্ভিসের চৌকসকর্মী আমিনুল ইসলাম, শাকিল মাহমুদ,শহিদুল ইসলাম ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধার অভিযান চালিয়ে ডোবা থেকে আহতদের উদ্ধার করে দৌলতখান হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

Leave a comment