1. mdmf@gmil.com : আশিষ আচার্য্য : আশিষ আচার্য্য
  2. asrapur121@gmail.com : আশরাফুর রহমান ইমন : আশরাফুর রহমান ইমন
  3. borhanuddin121@gmail.com : বোরহানউদ্দিন প্রতিনিধি : বোরহানউদ্দিন প্রতিনিধি
  4. admin@bholatimes24.com : Bhola Times | Online Edition : Bhola times Online Edition
  5. ssikderreport@gmail.com : চরফ্যাশন প্রতিনিধি : চরফ্যাশন প্রতিনিধি
  6. dowlatkhan@gmail.com : দৌলতখান প্রতিনিধি : দৌলতখান প্রতিনিধি
  7. easin21@gmail.com : ইয়াছিনুল ঈমন : ইয়াছিনুল ঈমন
  8. gourabdas121@gmail.com : গৌরব দাস : গৌরব দাস
  9. hasanpintu2010@gmail.com : লালমোহন প্রতিনিধি : লালমোহন প্রতিনিধি
  10. iqbalhossainrazu87@gmail.com : ইকবাল হোসেন রাজু : ইকবাল হোসেন রাজু
  11. iftiazhossen5@gmail.com : ইসমাইল হোসেন ইফতিয়াজ : ইসমাইল হোসেন ইফতিয়াজ
  12. mdmasudalom488@gmail.com : Afnan masud : Afnan masud
  13. mnoman@gmail.com : এম,নোমান চৌধুরী : এম,নোমান চৌধুরী
  14. monpura@gmail.com : মনপুরা প্রতিনিধি : মনপুরা প্রতিনিধি
  15. najmu563@gmail.com : নাজমুল মিঠু : নাজমুল মিঠু
  16. najrul125@gmail.com : নাজরুল ইসলাম সৈারভ : নাজরুল ইসলাম সৈারভ
  17. news.bholatimes1@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  18. news.bholatimes@gmail.com : News Room : News Room
  19. nirob121@gmil.com : ইউসুফ হোসেন নিরব : ইউসুফ হোসেন নিরব
  20. abnoman293@gmail.com : এম নোমান চৌধুরী চরফ্যশন প্রতিনিধি : এম নোমান চৌধুরী চরফ্যশন প্রতিনিধি
  21. nhohechowdhury@gmail.com : OHE CHOWDHURY NAHID : OHE CHOWDHURY NAHID
  22. mdmasudaom488@gmil.com : তজুমদ্দিন প্রতিনিধি : তজুমদ্দিন প্রতিনিধি
  23. sanjoypaulrahul11@gmail.com : sanjoy pal : sanjoy pal
  24. sohel123@gmail.com : সোহেল তাজ : সোহেল তাজ
  25. btimes536@gmail.com : সৌরভ পাল : সৌরভ পাল
  26. bholatimes2010@gmail.com : স্টাফ রিপোর্টার : স্টাফ রিপোর্টার
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৯ পূর্বাহ্ন

হস্তান্তরের দেড় মাসেও চালু করা সম্ভব হয়নি ভোলার তিনটি আইসিইউ বেড

আফনান মাসুদ ॥
  • সময়: শনিবার, ২৯ মে, ২০২১

দৈনিক ভোলা টাইমস্ঃঃ ভোলা সদর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তিনটি আইসিইউ বেড হস্তান্তরের দেড় মাসেও চালু করা সম্ভব হয়নি । জানা গেছে, দক্ষ চিকিৎসক ও নার্স না থাকায় এগুলো চালু করা সম্ভব হয়নি ।

করোনা মহামারির প্রথম দিকে ভোলা জেলার মানুষের জন্য আইসিইউ বেড স্থাপনের দাবি ওঠে। দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ভোলার স্বাস্থ্য বিভাগ নবনির্মিত ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের জন্য ১০টি আইসিইউ বেডের চাহিদা পাঠায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে। দীর্ঘ এক বছর অপেক্ষার পর গত মাসে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে ভোলায় পাঁচটি আইসিইউ বেড, পাঁচটি ভেন্টিলেটর ও পাঁচটি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলার বরাদ্দ দেয়। এর আলোকে গত ১৮ এপ্রিল কেন্দ্রীয় ঔষাধাগার (সিএমএসডি) থেকে তিনটি আইসিইউ বেড, তিনটি ভেন্টিলেটর ও তিনটি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা ভোলার স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে হস্তান্তর করে। আইসিইউ বেড আসার খবরে স্বস্তির নিঃশ্বাস নেয় ভোলা জেলার মানুষ। কিন্তু ভোলায় আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর চালানোর দক্ষ চিকিৎসক ও নার্স না থাকায় এগুলো কোনো কাজে আসছে না। এদিকে, রোগীর অবস্থা বেশি গুরুতর হলে আইসিইউ সাপোর্টের জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়। ভোলা থেকে ফেরি পার হয়ে ঢাকায় যেতে প্রায় ৮ থেকে ১২ ঘন্টা সময় লেগে যায়। অনেক সময় ঢাকায় নেওয়ার পথেই রোগী মারা যায়। এ অবস্থায় নদীবেষ্টিত এ জেলার মানুষের স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে দ্রুত আইসিইউ বেড চালানোর জন্য ডাক্তার ও নার্সসহ প্রয়োজনীয় জনবলের দাবি জানাচ্ছেন সচেতন মহল। এ ব্যপারে ভোলার ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. সিরাজ উদ্দিন বলেন, গত ২০ এপ্রিল তিনটি আইসিইউ বেড, তিনটি ভেন্টিলেটর ও তিনটি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা আসে।

আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে এগুলো স্থাপন ও পরিচালনার জন্য ডাক্তার, নার্স ও টেকনিশিয়ানসহ অন্যান্য জনবলের চাহিদা পাঠিয়েছি। তারা আমাদের বলেছে, সারাদেশেই জনবল সংকট রয়েছে। তাই কোনো ডাক্তার, নার্স ও টেকনিশিয়ান দেওয়া সম্ভব না। এগুলো স্থানীয়ভাবে স্থাপন করতে হবে এবং পরিচালনার জন্য বরিশাল বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করে ভোলা থেকে ডাক্তার ও নার্সদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। কিছু দিন আগে আমরা আমাদের টেকনিশিয়ান দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করে তিনটি আইসিইউ বেড স্থাপন করেছি। তবে এগুলো চালানোর জন্য সার্বক্ষণিক কমপক্ষে তিনজন ডাক্তার ও তিনজন নার্স দরকার। কিন্তু আমাদের কাছে অভিজ্ঞ নার্স ও ডাক্তার না থাকায় এগুলো চালানো যাচ্ছে না। আমরা বরিশালে খবর নিয়েছি। সেখানেও আইসিইউ চালানোর লোক নেই। তারা হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা দিয়ে গুরুতর রোগীদের সেবা দেয়। যেটি আমরা আরও আগ থেকেই পাঁচটি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা দিয়ে রোগীদের সেবা দিচ্ছি। ভোলা জেলা সিভিল সার্জন ডা. সৈয়দ রেজাউল ইসলাম বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে ভোলা সদর হাসপাতালের জন্য তিনটি আইসিইউ বেড পেয়েছি। বেড তিনটি স্থাপন করা হয়েছে।

আইসিইউ বেডের সঙ্গে সম্পৃক্ত মনিটর, প্রশিক্ষণসহ অন্যান্য যা প্রয়োজন তা আমরা এখনো সম্পন্ন করতে পারিনি। তাই আইসিইউ শুরু করতে পারিনি। আশা করছি লকডাউন উঠে গেলে ঢাকা থেকে ইঞ্জিনিয়ার এনে আইসিইউ সমস্যার সমাধান করতে পারব।

শেয়ার করুন:

আরো সংবাদ:
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪ - ২০২১ © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ।
Developer By Zorex Zira