এম, নোমান চৌধুরী,

দৈনিক ভোলা টাইমস্  :: বাংলাদেশে বহুল আলোচিত (২১) বছর বয়সী কখনো ডিআইজি, কখনো সিআইপি, কখনো প্রধানমন্ত্রী কার্যলায়ের বিশেষ শাখার প্রধান পরিচয় ৮ম শ্রেণি পড়ুয়া মো.আশরাফুল ইসলাম দিপু নিজেকে পরিচয় দেন জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) পরিচালক হিসেবে। এর বাইরে সুযোগ বুঝে কখনো সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তা, কখনো ব্যবসায়ী আবার কখনো বনে যান ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রনেতা।

দিপুর বাড়ী দক্ষিণ থানার নজরুল নগর ইউনিয়নে।

সুবিধামতো ভিন্ন ভিন্ন পরিচয় দিয়ে আসা এই যুবক চড়েন দামি গাড়িতে। স্কুলের গণ্ডি পার হতে না পারলেও রপ্ত করেছেন চূড়ান্ত প্রতারণার নানা কৌশল। চাকরি দেওয়ার নামে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা।

চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ আইচার থানার নোমান নামে এক যুবককে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে চাকরি দেওয়ার কথা বলে ২ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেন দিপু। পরে চাকরি না দিয়ে বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন কারেন দিপু। এ ব্যাপারে নোমান দক্ষিণ আইচা থানায় প্রতারণা মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় দক্ষিণ আইচা থানা পুলিশ ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে বিচারক। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এ কথা নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে দক্ষিণ থানার অফিসার ইনচার্জ হারুন অর রশিদ জানান, তাকে জিজ্ঞেসাবাদ করার জন্য আদালতে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে বিজ্ঞ বিচারক ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

Leave a comment