ভোলা সদর উপজেলা ৬নং ধনিয়া ইউনিয়ন ৫ নং নিজাম মেম্বার এর বাড়ির দরজায় এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী রহমান জানায় আমি গাজীপুর রোড দীর্ঘদিন যাবত গ্যাস, তৈল বিকাশ এর ব্যবসা করি প্রতিদিনের ন্যায় সেদিনও আমি গ্যাস, তৈল বিকাশ এর নগদ টাকা ৩ লক্ষ ৭৬ হাজার পাঁচশত টাকা সাথে নিয়ে আমার মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা করি ৫ নং ওয়ার্ডে মিজান মেম্বার এর বাড়ির দরজার গেলে কবরস্থানের ভিতর থাকা চর জন সন্ত্রাসী আমার পথরোধ করে দাঁড়ায় তিনজনকে আমি চিনিনা।কিন্তু একজন কে আমি চিনি, একজন হলো শফিক মাঝির ছেলে সোহাগ শফিক মাঝির ছেলে সোহাগ আমার সামনে এসে দাঁড়ায় হঠাৎ করে পিছন থেকে আমার মাথায় বাড়ি দিয়ে আমাকে ফেলে দেয়।

এবং আমার সঙ্গে থাকা নগদ টাকা মোবাইল ও মোটরসাইকেল নিয়ে যায় এই পর্যন্ত আমার হুশ আছে। এরপরে আমি আর কিছুই জানিনা আমার হুশ হওয়ার পরে আমি দেখি আমি ভোলা সদর হাসপাতালের পুরুষ সার্জারি ওয়ার্ডের অতিরিক্ত ৪ নং বেডে ভর্তি। আহত রহমানের বাবা জানায় আমি ধনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ ওয়ার্ড মেম্বার কে জানিয়েছি এবং থানায় অভিযোগ দিয়েছি মামলার প্রস্তুতি চলছে। শফিক মাঝি ভোলা টাইমস প্রতিবেদক কে জানায় আমার ছেলে রাতে বাড়িতে ছিল এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন ব্যবসায়ী রহমানের সঙ্গে তৈল নিয়ে আমার ঝামেলা ছিল। এ ব্যাপারে ভোলা সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি এনায়েত হোসেন জানায় অভিযোগ হাতে পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিব।

Leave a comment