ভারতের করোনা সংক্রমণের নিম্নমুখী ট্রেন্ড অব্যাহত। শনিবারই ৭০ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন হয়েছিল আক্রান্তের সংখ্যা। রোববার তা আরো কমলো। এপ্রিলের পর প্রথমবার ভারতের দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা নামল ৮০ হাজারের ঘরে। সেই সাথে কমলো মৃত্যুর দৈনিক সংখ্যাও।

করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা আঘাত হানার পর একটা সময় ভারতের অ্যাকটিভ কেস পৌঁছে গিয়েছিল ৪০ লাখের কাছাকাছি। সেটা কমতে কমতে আবার নেমে এল ১০ লাখের কোঠায়। দেশে সুস্থতার হার বেড়ে হল ৯৫.২৫ শতাংশ। রোববার সকালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেয়া পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৮০ হাজার ৮৩৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যা গত ৭১ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন। ফলে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৯৪ লাখ ৩৯ হাজার ৮৯৮ জন। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দেয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আপাতত মৃতের সংখ্যা ৩ লাখ ৭০ হাজার ৩৮৪ জন।

এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ৩০৩ জনের। গত বৃহস্পতিবার বিহার সরকার মৃতের পরিসংখ্যানে সংশোধন করায় দৈনিক মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়ে গিয়েছিল ৬ হাজারের গণ্ডি। গতকালও সংখ্যাটা ছিল ৪ হাজারের ওপরে। তুলনায় রোববার সকালের এই পরিসংখ্যান অনেকটাই স্বস্তিদায়ক। তবে, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জন্য বড় স্বস্তির জায়গা হল অ্যাকটিভ কেস। এদিন নতুন করে অ্যাকটিভ কেস কমেছে প্রায় ৫০ হাজারের কাছাকাছি। যার ফলে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা নেমে এসেছে ১০ লাখের কাছাকাছি। আপাতত অ্যাকটিভ কেস ১০ লাখ ২৬ হাজার ১৫৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ১ লাখ ৩২ হাজার ৬২ জন। ইতোমধ্যেই ভারতে ২৫ কোটি ৩১ লাখ ৯৫ হাজার ৪৮ জনকে টিকা দেয়া হয়েছে। নিয়মিত বাড়ছে করোনা পরীক্ষার হারও।

Leave a comment