আগুনে দগ্ধ হওয়া মায়ের নাম মোসা. সোনিয়া জান্নাত (২৭)। অপর দগ্ধ তাঁর দুই বছরের মেয়ে হুমাসা জান্নাত। ভবনটির মালিক দেলোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, গোলাম মোস্তফা নামের একজন কারখানার কর্মকর্তা বাড়িটির একটি ফ্ল্যাটে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে ভাড়া থাকেন। আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ওই ফ্ল্যাটে অগ্নিকাণ্ড ঘটে। ভবনের বাসিন্দারা নিজেদের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে তার আগেই মা-মেয়ে দগ্ধ হন। দগ্ধ ব্যক্তিদের উদ্ধার করে শ্রীপুরের মাওনায় বেসরকারি আলহেরা হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে আগুনের খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আসেন।গোলাম মোস্তফা নামের একজন কারখানার কর্মকর্তা বাড়িটির একটি ফ্ল্যাটে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে ভাড়া থাকেন। আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ওই ফ্ল্যাটে অগ্নিকাণ্ড ঘটে।শ্রীপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা ইফতেখার হোসেন রায়হান বলেন, তাঁরা সেখানে পৌঁছার আগেই আগুন নিভিয়ে ফেলা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, গ্যাসের সিলিন্ডার থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত। আলহেরা হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও চিকিৎসক মো. হ‌ুমায়ূন কবির জানিয়েছেন, দগ্ধদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। মায়ের শরীরের ৫০ শতাংশ ও শিশুর শরীরের প্রায় ৬০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ মো. বাচ্চু মিয়া আজ বেলা পৌনে তিনটার দিকে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি অন্য একটা ঘটনায় ব্যস্ত আছি। শুনেছি শ্রীপুর থেকে মা-মেয়ে গুরুতর দগ্ধ অবস্থায় শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে এসেছে।’

Leave a comment