মোঃ সোহেল

আজ বৃহস্পতিবার। এক সপ্তাহ লকডাউনের প্রথম দিন। করোনা ভাইরাসের ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে সারাদেশে কঠোর লকডাউনের নির্দেশ দেয় সরকার। আজকের এই প্রথম দিনে ভোলার উপশহর বাংলাবাজারের রাস্তায় নেই কোন লোকজন।নেই কোন কোলাহল। ব্যস্ততম শহরগুলো প্রায় জনশূন্য। শুধুমাত্র খেটে খাওয়া কিছু সংখ্যক মানুষ নিজের পরিবারের ক্ষুধা নিবারণের জন্য রাস্তায় নামতে হচ্ছে। এছাড়া মানুষ খুব একটা ঘর থেকে কম বের হচ্ছে। কিছু সংখ্যক বের হচ্ছে তাদের প্রয়োজনের তাগিদে।

উপশহরের মার্কেট দোকানপাট সব বন্ধ রয়েছে। ভোলা টু চরফ্যাশন সড়ক থেকে শুরু করে দৌলতখান সড়ক এবং বাঘমারা ব্রিজ সড়কগুলোতেও দুই- একটি রিক্সা ও ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা দেখা গেছে। জরুরি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সার্ভিসের আওতায় (ফার্মেসী, মুদি দোকান, কুরিয়ার সার্ভিস এবং কাঁচাবাজার) সকল প্রতিষ্ঠানের স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকল নিরাপত্তা নিশ্চিত করে খোলা রয়েছে। সম্প্রতি, বুধবার ৩০ জুন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ মানুষের চলাচল বিধিনিষেধ আরোপ করে ২১ দফা নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে। এতে উল্লেখ করে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাস জনিত রোগের (কোভিড -১৯) সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতিতে ১ জুলাই সকাল ৬ টা থেকে ৭ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হলো। সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস বাংলাবাজার শাখা প্রতিনিধি মো: সোলায়মান সোহেল বলেন, করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে স্বাস্থ্যবিধি এর কোনো বিকল্প নেই। সকলের সচেতনতা আমাদের রক্ষা করতে পারে এই ভাইরাস থেকে। বিগত দিনে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস এর অফিস স্বাস্থ্যবিধি মেনে গ্রাহকদের সেবা নিশ্চিত করে আসছে এবং এই বর্তমানে চলমান লকডাউন সহ আমাদের দেশে যতদিন এই করোনা মহামারী থাকবে ততদিন পর্যন্ত সকলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। বাংলাবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ গোলাম মোস্তফা বলেন, বাংলাবাজারের সরকারী বিধি মোতাবেক দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। আমাদের পুলিশ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

Leave a comment