1. mdmf@gmil.com : আশিষ আচার্য্য : আশিষ আচার্য্য
  2. asrapur121@gmail.com : আশরাফুর রহমান ইমন : আশরাফুর রহমান ইমন
  3. borhanuddin121@gmail.com : বোরহানউদ্দিন প্রতিনিধি : বোরহানউদ্দিন প্রতিনিধি
  4. admin@bholatimes24.com : Bhola Times | Online Edition : Bhola times Online Edition
  5. ssikderreport@gmail.com : চরফ্যাশন প্রতিনিধি : চরফ্যাশন প্রতিনিধি
  6. dowlatkhan@gmail.com : দৌলতখান প্রতিনিধি : দৌলতখান প্রতিনিধি
  7. easin21@gmail.com : ইয়াছিনুল ঈমন : ইয়াছিনুল ঈমন
  8. gourabdas121@gmail.com : গৌরব দাস : গৌরব দাস
  9. hasanpintu2010@gmail.com : লালমোহন প্রতিনিধি : লালমোহন প্রতিনিধি
  10. iqbalhossainrazu87@gmail.com : ইকবাল হোসেন রাজু : ইকবাল হোসেন রাজু
  11. iftiazhossen5@gmail.com : ইসমাইল হোসেন ইফতিয়াজ : ইসমাইল হোসেন ইফতিয়াজ
  12. mdmasudalom488@gmail.com : Afnan masud : Afnan masud
  13. mnoman@gmail.com : এম,নোমান চৌধুরী : এম,নোমান চৌধুরী
  14. monpura@gmail.com : মনপুরা প্রতিনিধি : মনপুরা প্রতিনিধি
  15. najmu563@gmail.com : নাজমুল মিঠু : নাজমুল মিঠু
  16. najrul125@gmail.com : নাজরুল ইসলাম সৈারভ : নাজরুল ইসলাম সৈারভ
  17. news.bholatimes1@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  18. news.bholatimes@gmail.com : News Room : News Room
  19. nirob121@gmil.com : ইউসুফ হোসেন নিরব : ইউসুফ হোসেন নিরব
  20. abnoman293@gmail.com : এম নোমান চৌধুরী চরফ্যশন প্রতিনিধি : এম নোমান চৌধুরী চরফ্যশন প্রতিনিধি
  21. nhohechowdhury@gmail.com : OHE CHOWDHURY NAHID : OHE CHOWDHURY NAHID
  22. mdmasudaom488@gmil.com : তজুমদ্দিন প্রতিনিধি : তজুমদ্দিন প্রতিনিধি
  23. sanjoypaulrahul11@gmail.com : sanjoy pal : sanjoy pal
  24. sohel123@gmail.com : সোহেল তাজ : সোহেল তাজ
  25. btimes536@gmail.com : সৌরভ পাল : সৌরভ পাল
  26. bholatimes2010@gmail.com : স্টাফ রিপোর্টার : স্টাফ রিপোর্টার
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন

করোনায় সবাই যখন দিশেহারা, তখনই করোনাকে জয়ের পথে ৫ দেশ

রির্পোটার
  • সময়: রবিবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২০

বিশ্বজুড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে প্রাণঘাতী মহামারি করোনাভাইরাস। এরই মধ্যে এই মারণ ভাইরাসের ছোবলে প্রায় গেছে দুই লাখেরও বেশি মানুষের। আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৩০ লাখ। এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতেও সঠিক পদক্ষেপ, দ্রুত সীমান্ত বন্ধ করা এবং সরকারি দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করার মাধ্যমে কভিড-১৯ মহামারি জয়ের পথে ৫ দেশ- তাইওয়ান, দক্ষিণ কোরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, জার্মানি ও অষ্ট্রেলিয়া।
১) তাইওয়ান

করোনা জয়ের পথে সবচেয়ে এগিয়ে আছে উৎসভূমি চীনের সান্নিধ্যে থাকা তাইওয়ান। ২ কোটি ৪০ লাখ মানুষের দেশটি বিশ্বের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ স্থান হিসেবে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছিল। কারণ দেশটির সাড়ে আট লাখ মানুষ চীনের মূল ভূখণ্ডে কাজ করেন। তবে দেশটির ঝুঁকি এখন শুন্যের কোঠায়। ১০ দিনের বেশি হতে চললো তাইওয়ানে নতুন করে কেউ করোনাভাইরাস সংক্রমিত কভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়নি। করোনা মহামারিতে পুরো বিশ্ব যখন বিপর্যস্ত, তখন ভাইরাসটি প্রতিরোধে তাইওয়ান অন্য দেশগুলোর তুলনায় অনেক এগিয়ে। দ্বীপরাষ্ট্র তাইওয়ান গত জানুয়ারি থেকে করোনা পরীক্ষা করে আসছে। সামান্য লক্ষণ ও ভ্রমণ ইতিহাস থাকলেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের পরীক্ষা করা হতো। সে সময় তাদের পাশ্ববর্তী দেশে চীনে মৃত্যুর মিছিল চলছিল। বৈশ্বিক জরিপকারী সংস্থা ওয়ার্ল্ডও মিটারের তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত তাইওয়ানে ৪২৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এরমধ্যে ৩৩৮ জনই বিদেশফেরত। আর মারা গেছেন ৬ জন। সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ২৮১ জন। এই সফলতার পেছনে রয়েছে- ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা, ব্যাপক হারে পরীক্ষা, রোগীর সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের শনাক্ত ও কঠোর কোয়ারেন্টাইনে দেশটি দৃঢ়তার সঙ্গে কার্যকর করেছে।
২) অস্ট্রেলিয়া

করোনা জয়ের পথে এগিয়ে যাওয়া আরেক দেশ অস্ট্রেলিয়া। দেশটিতে এরই মধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমতে শুরু করেছে। শনিবার দেশটিতে নতুন করে মাত্র ৮ জন এই প্রাণঘাতী ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। যা দেশটির জন্য কিছুটা স্বস্তির। প্রথমদিকে দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছিল। কিন্তু সরকারের কঠোর পদক্ষেপের কারণে করোনা যুদ্ধে জয়ের পথে এগিয়ে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া। দেশটির পাঁচটি রাজ্য ও অঞ্চলে নতুন করে কেউ করোনায় আক্রান্ত হয়নি। অপরদিকে ভিক্টোরিয়া অঙ্গরাজ্যে নতুন করে মাত্র একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার উত্তরাঞ্চল,পশ্চিমাঞ্চল এবং দক্ষিণাঞ্চলেও নতুন করে কেউ করোনায় আক্রান্ত হয়নি। এমনকি সেখানকার ৯০ শতাংশ রোগী ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে। এছাড়া দেশজুড়ে ব্যাপকহারে করোনার টেস্ট করা হয়েছে। ফলে প্রথম থেকেই আক্রান্তদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা গেছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট ৬ হাজার ৭১১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৫ হাজার ৫৩৯ জনই সুস্থ হয়ে উঠেছে। অপরদিকে মারা গেছেন ৮৩ জন। প্রথম থেকেই কড়াকড়ি পদক্ষেপের কারণে অস্ট্রেলিয়া করোনা বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হচ্ছে। শুরু থেকেই বিদেশ ফেরত নাগরিকদের ১৪ দিনের আইসোলেশন বাধ্যতামূলক করা হয়। এমনকি আইসোলেশন নিশ্চিত করতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে পাহারা দিয়েছে পুলিশ। একই সঙ্গে জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা আনা হয়। প্রথম থেকেই চীনফেরতদের জন্য সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া।
৩) জার্মানি

ইউরোপের দেশ জার্মানিতে বিপুল সংখ্যক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হলেও সরকারের কঠোর পদক্ষেপ ও উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থার কারণে শুরু থেকেই মৃত্যুর হারে লাগাম পরিয়ে রাখতে পেরেছিল অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের দেশ। টানা কঠোর লকডাউন ও উন্নত চীকিৎসা ব্যবস্থার সুফল অবশেষে পেতে শুরু করেছে দেশটি। বর্তমানে করোনা জয়ের পথে জার্মানি। ওয়ার্ল্ডও মিটারের দেওয়া তথ্য মতে দেশটি এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৫৬ হাজার ৫১৩ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ১ লাখ ৯ হাজার ৮০০ জন। ৪১ হাজারের মতো চিকিৎসাধীন রোগী সুস্থ হওয়ার পথে। মৃত্যু হয়েছে ৫ হাজার ৮৭৭ জনের। মোট আক্রান্তের তুলনায় এটা খুবই নগন্য।

৪) দক্ষিণ আফ্রিকা

করোনা ভাইরাসের জয়ের খুব কাছে দক্ষিণ আফ্রিকা। দেশটিতে এরই মধ্যে লকডাউন শিথিল করা শুরু হয়েছে। কৃষি খাতকে পুনারয় উন্মুক্ত করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে দেশটিতে প্রায় এক মাস ধরে বিভিন্ন ধরনের কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছিল। তারই সুফল পাচ্ছে দেশটি। রবিবার পর্যন্ত দেশটিতে করোনা আক্রান্ত হিসাবে ৪ হাজার ৩৬১ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর মারা গেছেন অন্তত ৭৯ জন। এছাড়া সুস্থ হয়েছেন অন্ত ১ হাজার ৪৭৩ করোনা রোগী।
৫) দক্ষিণ কোরিয়া

করোনা নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছে বিশ্বের অনেক উন্নত দেশ। সেক্ষেত্রে করোনা নিয়ন্ত্রণে সফলতা দেখিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। এক অংকে নেমে এসেছে দেশটির করোনায় আক্রান্তে সংখ্যা। রবিবার দক্ষিণ কোরিয়ায় নতুন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে মাত্র ১০ জন। এই নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্ত হয়েছে ১০ হাজার ৭৭২ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছে ৮ হাজার ৭১৭ জন এবং সুস্থ হওয়ার পথে ১ হাজার ৭৬৯ জন। শুরুতে বড় আকারে ছড়িয়ে পড়ার পর কয়েক দিনের মধ্যেই দক্ষিণ কোরিয়া ব্যাপকভাবে পরীক্ষা শুরু করে। উপসর্গ না থাকলেও অন্যকে সংক্রমিত করতে পারেন এমন লোকদের পরীক্ষা করা, নিশ্চিত রোগীদের বিচ্ছিন্ন করে রাখা এবং তাদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের শনাক্ত করার মত বিস্তৃত কর্মসূচি নিয়েছিল দেশটি। বেশি একটা বিপর্যয় সৃষ্টির আগেই নভেল করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় দক্ষিণ কোরিয়ার নেওয়া কার্যকর পদক্ষেপ খুবই প্রশংসিত হয়।
সুত্র https://www.kalerkantho.com/online/world/2020/04/26/904007

শেয়ার করুন:

আরো সংবাদ:
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪ - ২০২১ © এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ।
Developer By Zorex Zira