ভোলার মনপুরায় বোনের বাড়ি থেকে মেহেদী পাতা তুলতে গিয়ে প্রতিবন্ধী শালিকাকে ঘরে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় দুলাভাই বেলায়েত হোসেন মিস্ত্রী (৪৭)। উপজেলার দক্ষিণ সাকুচিয়া ইউনিয়নের রহমানপুর গ্রামের ৫ নং ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে।

পরে প্রতিবন্ধী যুবতী শালিকা নিজেকে রক্ষা করে ব্যাপারটি বাড়িতে জানালে শনিবার বিকালে দুলাভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন ওই প্রতিবন্ধী যুবতীর ভাই বেলাল। এরপর পুলিশ রাতে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত দুলাভাইকে বাড়ী থেকে আটক করে। এদিকে একে একে উপকূলে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ায় সচেতন মহলসহ স্থানীয়দের মাঝে আতংক বিরাজ করছে।

এখনই এই ব্যাপারে কার্যকর প্রদক্ষেপ গ্রহন না করলে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হতে পারে বলে আশংকা করছেন স্থানীয় সচেতন মহল।রোববার ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে আটককৃত দুলাভাইয়ের বিরুদ্ধে মনপুরা থানায় মামলা করেন ওই প্রতিবন্ধী যুবতীর ভাই বেলাল। পরে পুলিশ আটককৃত আসামীকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

ওই প্রতিবন্ধী যুবতির ভাই বেলাল জানান, শুক্রবার বিকেলে প্রতিবন্ধী বোন পাশে থাকা বোনের বাড়িতে মেহেদী পাতা আনতে যায়। তখন বাড়িতে বোন না থাকায় দুলাভাই ঘরে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। ঘটনাটি বাড়িতে এসে জানালে শনিবার থানায় অভিযোগ করি। পরে রাতে পুলিশ বাড়ি থেকে আটক করে।

রবিবার থানায় দুলাভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা করি। এ ব্যাপারে মনোয়ারা বেগম মহিলা কলেজের সহকারি অধ্যাপক মাহবুবুল আলম শাহীন জানান, যেভাবে মনপুরায় ধর্ষণের মাত্রা দিন দিন বেড়ে চলছে মনে হয় বেগমগঞ্জের ভূত মনপুরায় এসে পড়েছে।

এখনই প্রশাসনের পাশাপাশি স্থানীয়দের এই ব্যাপারে কার্যকরী প্রদক্ষেপ গ্রহন করতে না পারলে পরিস্থিতি ভয়াবহ রুপ ধারন করতে পারে। এ ব্যাপারে মনপুরা থানার ওসির দায়িত্বে থাকা পুলিশ পরিদর্শক মোঃ ইব্রাহীম হোসেন নয়ন জানান, ধর্ষণচেষ্টায় ওই প্রতিবন্ধীর দুলাভাইকে আটক করা হয়। আটককৃত আসামীকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।

Leave a comment