স্টাফ রিপোর্টার ॥ 
গতকাল ৩ নভেম্বর সকালে পাপিয়া চৌধুরী লিখিত বক্তব্যের মাধ্যমে তার ভাই ভোলা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইব্রাহীম চৌধুরী পাপনের বিরুদ্ধে ভোলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে যে সকল অভিযোগ তুলে ধরেছেন তার সে সকল তথ্যকে মিথ্যা ও বানোয়াট উল্লেখ করে পাপনের বিরুদ্ধে করা সংবাদ সম্মেলনের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন তিনি পাপন চৌধুরী ও তার মা নুরুন নাহার (দিপা)। তার বোন পাপিয়া চৌধুরীর সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদ জানিয়ে পাপন বলেন, আমার বাবা রফিকুল ইসলাম বাবুল চৌধুরী ২০১৬ সালে মারা যান। বাবার মৃত্যুর পর নিয়ম অনুযায়ী মা, বোন ও আমি তিন জন ওয়ারিশসুত্রে বাবার সম্পত্তির মালিক হই। আমার বাবা জীবিত থাকাকালীন আমার বোন কে তার পছন্দের পাত্রের সাথে বিয়ে দেন। কিন্তু আমার বাবার মৃত্যুর পরে আমার বোন পাপিয়া তার বিবাহিত সংসার ত্যাগ করে নিজ ইচ্ছায় আমাদের না জানিয়ে এবং তার স্বামীকে ও না জানিয়ে অন্য একজনকে বিয়ে করে চলে যায় । তার সুত্রধরে পাপিয়া চৌধুরির পারিবারিক অভিবাবক হিসেবে আমি এবং আমার মা দীর্ঘদিনের চেস্টার পরে তার সাথে যোগাযোগ করে তাকে বোঝানোর চেস্টা করি সে কাজ টি ঠিক করেনি । তবে সে আমাদের কথা কর্নপাত না করে তার নিজের ইচ্ছামতে জীবন জাপন করতেছিল । এর ফলে সামাজিক ভাবে আমার পরিবার হেয় প্রতিপন্ন হয় । এতে আমার মা ও আমি আমার বোনের উপর প্রচন্ড রাগ ও অভিমান নিয়ে তার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেই । এই ঘটনার কিছুদিন পরে হঠাৎ আমার বোন পাপিয়া চৌধুরী বিভন্ন সুত্রে একাধিক স্থানীয় বহিরাগত লোকের মাধ্যমে তার পৈতৃক সম্পত্তির ভাগ দাবি করেন । কিন্তু আমি মোটেও তা দিতে অস্বিকৃতি জানাই নাই । কিন্তু কোন এক কুচুক্রি দলের প্ররোচনায় আমার বোন পাপিয়া চৌধুরি আমার নামে ষড়যন্ত্রমুলক, মিথ্যে ও বানোয়াট কাহিনী প্রকাশ করে যা সম্পুর্ন ভিত্তিহিন ও মিথ্যা ।  বোনের করা সংবাদ সম্মেলনে যে অভিযোগ পাপন চৌধুরী নামে তুলে ধরা হয় তার সত্যতা যাচাই করতে আমরা সরেজমিনে গিয়ে যা শুনতে পাই আপনারা দেখুন:-ভিডিওতে……..
ষড়যন্ত্রকারীদের প্ররোচনায় সে আমার নামে একটি মামলাও করে । যা সম্পুর্ন অনৈতিক ও নীতি বহির্বুত । পাপিয়া শুধু এতেই ক্ষান্ত হয়নি । সে আমার রাজনৈতিক বিরোধীদের ছত্রছায়ায় তাদের সাহায্য নিয়ে তাদেরকে ভুল তথ্য দিয়ে এবং তাদের মাধ্যমে আমার নেতা, আমার অবিভাবক আলহাজ্ব তোফায়েল আহমেদ কে আমার সম্পর্কে ভুল তথ্য জানিয়ে আমাকে দোষী সাব্যস্থ করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত এবং এবিষয়ে তার মা বলেন আমার মেয়ে পাপিয়া তার বাবার মৃত্যুর পরে মানষিক ভাবে ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে। তারা ছেলে ও মা উভয়েই এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

Leave a comment